শুক্রবার, 14 ডিসেম্বর 2018

টাকা পয়সা বা সহায়তা নয়, মৃত্যুর আগে মুক্তিযোদ্ধার রাস্ট্রীয় স্বীকৃতি দেখে যেতে চান রণাঙ্গনের বীর সেনানী আনোয়ারা বেগম

Written by  শনিবার, 01 ডিসেম্বর 2018 01:45
ফিডব্যাক দিন
(0 votes)

স্টাফ রিপোর্টার ঃ টাকা পয়সা বা সহায়তা নয়, মৃত্যুর আগে মুক্তিযোদ্ধার রাস্ট্রীয় স্বীকৃতি দেখে যেতে চান রণাঙ্গনের বীর সেনানী আনোয়ারা বেগম। রণাঙ্গনের এই যোদ্ধা একজন নারী হয়ে ও আমাদের মহান স্বাধীনতা সংগ্রামে কয়েকটি সম্মুখ সমরে সরাসরি অংশ গ্রহণ করে বিজয় ছিনিয়ে আনেন। জীবন সায়াহ্নে এসে শুধুমাত্র তার অবদানের রাস্ট্রীয় স্বীকৃতির জন্য দ্বারে দ্বারে ঘুরে ক্লান্ত পরিশ্রান্ত হয়ে বড় অভিমানী আনোয়ারা আজ খুলনা শহরের মহেশ্বরপাশার বণিকপাড়ার ভাড়া বাসায় অসুস্থ স্বামীকে নিয়ে চরম অর্থ কষ্টো নিয়ে জীবন যুদ্ধ জালিয়ে যাচ্ছে। জীবন বাঁচাতে দিনভর এখানে সেখানে খাল বিল থেকে শাকপাতা কুড়িয়ে মুন্সীপাড়া বৌ বাজারে বিক্রি করেন চালাচ্ছেন তার সংসার। বীর মুক্তিযোদ্ধা আনোয়ারা বেগম ১৯৫২ সালের ১ জানুয়ারী বাগেরহাটের ফকিরহাট উপজেলার কামটা গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর ৭ মর্চের আগুনঝরা ডাকে উজ্জীবিত হয়ে শত প্রতিকুলতাকে পেছনে ফেলে মুক্তিযুদ্ধে সক্রিয়ভাবে অংশগ্রহন করেন আনোয়ারা বেগম। তিনি ৬ নং সাবসেক্টরের অধীনে ফকিরহাটের মনসা জমিদার বাড়ী ও বলটিটুপ প্রাথমিক বিদ্যালয়ে স্থানীয় মুক্তিযোদ্ধাদের কাছে প্রশিক্ষণ গ্রহণ করেন। প্রশিক্ষনে তিনি রাইফেল-১১, স্টেনগান-২৮ ও কাটা রাইফেল-০৪ চালানোতে বিশেষ দক্ষতা অর্জন করেন। প্রশিক্ষণ শেষে তিনি ফকিরহাটের  কমান্ডার মানস ঘোষের নেতৃত্বে ১৯৭১ এর  ৮ ও ৯ এপ্রিল গাটবো ও মানসা খেয়াঘাট এলাকায় সশ¯্র যুদ্ধে অংশ নিয়ে  বিজয় অর্জন করেন, সে দিনের কথা মনে করে আনোয়ারা বেগম স্মৃতিচারণ করে বলেন কয়েকজন পাক হানাদারদের লাশ টেনে হিচড়ে নদীতে ফেলে দেন। অবশ্য পরের দিনের যুদ্ধে তাদের ৭ জন মুক্তিযোদ্ধা শহীদ হবার কথা ও জানান আনোয়ারা। এর পর ও ১৩ ও ১৮ এপ্রিল ১৯৭১ কমান্ডার আবু মোড়লের নেতৃত্বে নিজ জন্মভিটা কামটাতেও তিনি হানাদারদের বিরুদ্ধে সম্মুখ সমরে অংশ নেন। তার যুদ্ধকালীন সহযোদ্ধা ফকিরহাটের মোঃ আকবর আলী মোল্ল্যা (মুক্তিবার্তা-৩৫২১) ও স্থানীয় মেম্বর কওসার ও আনোয়ারা বেগমের মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণের বিষয়টি নিশ্চিত করেন। নিজের স্বীকৃতি আদায়ের জন্য দ্বারে দ্বারে ঘুরে ব্যার্থ হয়ে এ বীর সেনানী আজ বড় ক্লান্ত আর অসহায় হয়ে পড়েছে। কান্নাজড়িত কন্ঠে তিনি এ প্রতিবেদক কে জানান, আমার সহযোদ্ধারা ও আমার কাছে  মুক্তিযোদ্ধা সনদের কাজের জন্য টাকা চান কিন্তু আমি টাকা পাবো কোথায়? অভিমানী এ রণাঙ্গনের বীর সেনানী জাতির জনকের কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে তার জীবনের শেষ চাওয়া মৃত্যুর আগে মুক্তিযোদ্ধার রাস্ট্রীয় স্বীকৃতি দেখে যেতে চান । তিনি কান্না জড়িত কন্ঠে তার কাছে রক্ষিত কিছু দালিলিক প্রমান এই প্রতিবেদকের কাছে দিয়ে বলেন যেখানে গিয়েছি সেখানেই টাকা খচর চেয়েছে আর খবর দিতে না পারায় আজ আমি অবহেলিত ও বঞ্চিত।

০১-১২-২০১৮

01-12-2018

 

পড়া হয়েছে 0 বার

আপনার মতামত জানান...

আপনার মতামত জানানোর জন্য ধন্যবাদ

সোস্যাল নেটওয়ার্ক

খবরের ভিডিও

অনলাইন জরিপ

দুদক চেয়ারম্যান বলেছেন, দুর্নীতির মাধ্যমে অর্জিত অর্থ জঙ্গিবাদের পেছনে ব্যয় হচ্ছে। আপনিও কি তা-ই মনে করেন?
  • Votes: (0%)
  • Votes: (0%)
  • Votes: (0%)
Total Votes:
First Vote:
Last Vote:

হাট-বাজার

আঠারো মাইল পশুর হাট - ডুমুরিয়া, খুলনা, বাংলাদেশ

বিস্তারিত দেখুন

পুরনো খবর

প্রধান সম্পাদক : আতিয়ার পারভেজ || সম্পাদক ও প্রকাশক : মনোয়ারা জাহান || ব্যবস্থাপনা সম্পাদক : মো: শাহীন ইসলাম সাঈদ।
বার্তা, সম্পাদকীয় ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : ২৫, স্যার ইকবাল রোড, পিকচার প্যালেস মোড়, গোল্ডেন কিং ভবন, খুলনা।
সম্পাদক কর্তৃক দেশ বাংলা প্রিন্টার্স, ৫৮, সিমেট্রি রোড, খুলনা হতে মুদ্রিত ও ১০০, খানজাহান আলী রোড থেকে প্রকাশিত।
যোগাযোগঃ সম্পাদক : ০১৭৫৫-২২৪৪০০, বার্তা কক্ষ : ০১৭৮৭-০৫৫৫৫৫, বিজ্ঞাপন : ০১৭৫৫-১১১৮৮৮
ইমেইল : newsamarekush@gmail.com || ওয়েব: amarekush.com